1. admin@newsbayanno24.com : admin :
  2. newsbayanno24@gmail.com : newsbayanno24 : নিউজ বায়ান্ন ২৪ ডটকম
রবিবার, ২৮ মে ২০২৩, ১০:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
যমুনা নদীতে চর পড়ে পানি প্রবাহে বাধা পানি সংকটে যমুনা সার কারখানা আগামীকাল শুরু হতে যাচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা মৌলভীবাজারে বিভিন্ন থানার মুলতবী মামলাসমূহ দ্রুত নিষ্পত্তি নিয়ে আলোচনা সভা জাতীয় আইন সহায়তা দিবসে গাজীপুরে র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত  পত্নীতলা ব্যাটালিয়ন ১৪ বিজিবি’র পৃথক অভিযানে স্বর্নের বারসহ চোরাকারবারি আটক রাজনগরে হাওরের ধান দ্রুত কাটার জন্য মাইকিং লৌহজংয়ে ধর্ষণচেষ্টা মামলায় মাদ্রাসা শিক্ষক আটক, আদালতে প্রেরণ কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আঃলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন মোঃমাহবুবুর রহমান মাবু  কক্সবাজারের রাখাইন পল্লীতে বাংলা নববর্ষ পালনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু নিখোঁজের একদিন পর শ্রীমঙ্গলে দশ বছরের শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির ফলে বিপাকে জনজীবন

মো. সোহেল রানা, ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৪০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
চলছে মুসলমানদের পবিত্র সিয়াম সাধনার মাস  মাহে রমজান।মাহে রমজানকে সামনে রেখে সবারই চাহিদা থাকে সারাদিন রোজা রেখে রাতে অন্তত একটু ভালো-মন্দ খেতে। কিন্তু প্রতিনিয়ত দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্ধগতির ফলে মানুষের ক্রয় ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে।যার ফলে সারাদিন তপ্ত রোদে রোজা রেখে ভালো মন্দ খেতে পারছেনা নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষ। বাজারে ক্রমান্বয়ে দ্রব্যমূল্য লাগামহীন ঘোড়ার মতো ছুটেই চলেছে।কবে এই লাগামহীন ঘোড়ার ছূটে চলার অবসান ঘটবে জানেনা সাধারণ মানুষ। এমতাবস্থায় সাধারণ মানুষ এখন চিন্তায় হাবুডুবু খাচ্ছে। প্রতিটি জিনিসের দাম যেন আকাশচুম্বী।পূর্বের তুলনায় দ্রব্যমূল্য কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সব মিলিয়ে কাঁচাবাজারের লাগামহীন মূল্যে নিম্ন আর মধ্যম আয়ের মানুষের জনজীবন এখন বিপর্যস্ত। বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষের কপালে যেন চিন্তার ছাপ স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় সব ধরনের জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপাকে সাধারণ মানুষ। বাড়িওয়ালা থেকে ভাড়াটিয়া কেউই যেন রেহাই পাচ্ছেন না দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কবল থেকে। বাজারে সব পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় খেটে-খাওয়া মানুষজনেরা ভিড় করছেন এলাকার ওএমএসের দোকানগুলোতে। এসব দোকান থেকে শুধুমাত্র চাল ও আটা কিনতে পারলেও মাছ, মাংস, শাকসবজিসহ সংসারের বাজার তালিকার অন্য সবকিছুই বাইরে থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে নিম্ন আয়ের এই  পরিবারগুলোকে। এতে বাজার করতে এসে হিমশিমে পড়তে হচ্ছে এলাকার বাড়িওয়ালা-ভাড়াটিয়া সবাইকে।
কথা হয় আখানগর বাজারে ক্রয় করতে আসা ক্রেতার সাথে তিনি বলেন,বর্তমান দেশের বাজার পরিস্থিতি একেবারেই নিয়ন্ত্রণের বাইরে। ব্যবসায়ীরা লোক বুঝে একেকজনের কাছে একেক রকম দামে পণ্য বিক্রি করছেন। এতে একেবারেই খেটে-খাওয়া শ্রেণির মানুষ চরম বিপাকে পড়েছেন। সেই সঙ্গে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষ চরম হতাশায় ভুগছেন। বাজার পরিস্থিতি এ রকম থাকলে সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়বে।
ডিমের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার প্রসঙ্গে  জানতে চাইলে এক ব্যবসায়ী জানান, একদিকে মুরগির খাবারের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে অন্যদিকে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ডিমের দাম বাড়ানো হয়েছে।
এদিকে সরকার ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্য কম দামে দেওয়া শুরু করেছে। সেই পণ্য চাহিদার তুলনায় একেবারেই নগণ্য। টিসিবির পণ্য কিনতে আসাদের লম্বা লাইন দেখলে সহজেই অনুমান করা যায় চলমান পরিস্থিতিকে। অনেক মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষ লজ্জা লুকিয়ে টিসিবির পণ্য ক্রয়ের লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকছেন।
মঙ্গলবার  সকাল থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের বিভিন্ন মার্কেট ও খাদ্য অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত ওএমএস ট্রাকসেল দোকানগুলো ঘুরে দেখা যায় বাজার করতে আসা মানুষদের হিমশিমের চিত্র।
ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার চিলারং ইউনিয়নে কথা হয়  টিসিবি পণ্য নিতে আসা বয়স্ক মাজেদা বেগমের সাথে।তিনি জানান,সরকার তো চাউল,ডাইল,তেল, কালাই দেছে খালি।ওইলাও খুবি কম।বাকিলা কে দিবে?খরচের যে দাম ভালো মন্দ তো কিছু কিনে খাবা পারুনা।
আরো কথা হয় ওএমএসের চাল নিতে আসা ঠাকুরগাঁও রোড বাজারের  দীর্ঘ লাইনে দাড়িয়ে থাকা এক ভদ্র মহিলার সাথে তিনি জানান, বাজারে সবকিছুর দাম বেশি। তাই এই জায়গা থেকে চাল নিতে আসছি। জামাইয়ের একা ইনকামের টাকায় চলতে এমনেই কষ্ট হয়। বাজারের তুলনায় এই দোকানে চাল আর আটা এখান থেকে কিছুটা কম দামে পাওয়া যায় তাই সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে আছি।
এমন নাজুক পরিস্থিতিতে এলাকার আখানগর বাজার ও আলাদিরহাট  বাজারে গিয়ে দেখা যায়, নিম্নবিত্ত মানুষজনদের নিত্যদিনের কাঁচাবাজার ও মুদি মালামাল কেনায় সংকটের চিত্র।
বাজারের এক মাছ বিক্রেতা  জানান, জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় আগের তুলনায় বিক্রিও কমে গেছে তাদের। কাস্টমাররা আগে যেখানে এক কেজি মাছ নিতো বাজারে অন্যান্য জিনিসের দাম বেড়ে যাওয়ায় এখন পরিমাণে মাছ কমিয়ে নিচ্ছেন ক্রেতারা।
তবে মানুষ এখন নিরুপায়। কারণ পাঁচ টাকার শাক বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়। করলার কেজি ৮০ টাকা, পটলের কেজি ৭০ টাকা, আলুর কেজি ২৫-৩০ টাকা। ডিমের হালি ৪৫-৪৮ টাকা। বেড়েছে পেস্ট, শ্যাম্পু, সাবান, মাথার তেলের দামও।
দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এক রিক্সাচালক
বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভের সাথে জানান, ইনকাম এক টাকাও বাড়ে নাই অথচ বাজারে প্রত্যেকটা জিনিসের দাম বাড়ছে। খুবই খারাপ অবস্থা। একেবারে নাভিশ্বাস উঠে গেছে।
এ ব্যাপারে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার ঠাকুরগাঁও জেলার সহকারী পরিচালক মো. শেখ সাদী বলেন, রমজান মাসে যাতে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি না হয় সেই অনুযায়ী বাজারগুলো মনিটরিং করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © 2023 নিউজ বায়ান্ন ২৪

প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park