1. admin@newsbayanno24.com : admin :
  2. newsbayanno24@gmail.com : newsbayanno24 : নিউজ বায়ান্ন ২৪ ডটকম
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২৩ অপরাহ্ন

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা শ্রমিকলীগের মধ্যে সবচেয়ে ভদ্র রাজনীতি করে সাদ্দাম হোসেন ** দীর্ঘ ১৫ বছরেও যার বিরুদ্ধে নেই কোন অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৬২১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে স্বচ্ছ রাজনীতিতে প্রশংসা কুড়িয়েছেন আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগের সংগ্রামী সদস্য সচিব, রাজপথের পরিক্ষীত নেতা সাদ্দাম হোসেন। যার প্রমান হলো তার দীর্ঘ সময়ের রাজনীতিতে নেই কোন অভিযোগ, নেই কোন মামলা। নেই কোন মারামারির ইতিহাস, নেই সন্ত্রাসী, চাদাবাজি কিংবা মাদকের মতো জঘন্য কোন অপরাধের তকমা। তবে বিএনপি-জামাতের হরতালের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে সাদ্দাম হোসেনের উপর হামলার শিকারের প্রমান এখনো পত্রিকা ও জাতীয় টেলিভিশনের মতো মিডিয়াতে রয়েছে। গতকাল বুধবার এমনটি বলছিলেন সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষ। বিভিন্ন পত্রিকাও অনলাইনে সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে মিথ্যে সংবাদ দেখে সিদ্ধিরগঞ্জ যারা সাদ্দাম হোসেনের শুভাকাঙ্খি রয়েছেন তারা তো হতবাক। কিং কতব্য বিমুঢ়। সিদ্ধিরগঞ্জবাসী তাদের অভিমতে জানান, গত ৩টি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিস্বার্থভাবে নৌকার মাঝি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য জননেতা একেএম শামীম ওসমানের পক্ষে কাজ করে সিদ্ধিরগঞ্জে আ.লীগের মধ্যে স্থান করে নিয়েছে এই সাদ্দাম হোসেন। সাদ্দাম হোসেন এখন আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগের নেতা-কর্মীদের কাছে একজন দক্ষ ও যোগ্য নেতা। তার মধ্যে রয়েছে প্রতিভা, সংগঠন শক্তিশালী করার যোগ্যতা। হাজার হাজার নেতাকর্মী নিয়ে রাজপথ কাপানোর যোগ্যতা। তার মধ্যে রয়েছে শিক্ষাগত গুন, রয়েছে ভদ্রতা ও মান্যতা। সিনিয়র নেতারা তার প্রতিভায় খুশি হয়ে প্রায় বিলুপ্ত হবার পথে থাকা আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগের সদস্য সচিব নির্বাচিত করে। যে আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগ চাদাবাজির দোষে দুষ্ট ছিলো, সেই সংগঠনের দায়িত্ব পেয়ে সাদ্দাম হোসেন অল্পদিনে নারায়ণগঞ্জে শক্তিশালী করে তুলে আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগকে। বিশাল বিশাল মিছিল, আ.লীগের প্রতিটি কর্মসূচী সফলভাবে পালন করে সাদ্দাম হোসেন দেখিয়ে দেয় শ্রমিকলীগ চাদাবাজির জন্য প্রতিষ্টা করা হয়নি। এটা প্রতিষ্টা করা হয়েছে শেখ হাসিনার হাতকে শাক্তিশালী করার জন্য। আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগের সদস্য সচিব হয়ে দলকে শক্তি করায় আ.লীগের ভিতর যারা দীর্ঘ দিন দলের নাম ভেঙ্গে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছে, দুর্নীতি করেছে, আ.লীগকে নিজের সম্পদ মনে করে লুটপাট করে সমাজে বিতর্কিত হয়েছে, এলাকাবাসী যাকে একটুও পছন্দ করে না। সেই সকল বিতর্কিত দুর্নীতিবাজ, ক্ষমতা কুক্ষিগত করে একক প্রভাব বিস্তারকারীরা সাদ্দাম হোসেনকে মেনে নিতে পারেনি। রাজনীতিতে সাদ্দাম হোসেনের সক্রিয়তাকে দুর্নীতিবাজদের ভালো লাগেনি। তাই সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে শুরু করে ষড়যন্ত্র। সে অবৈধ সদস্য সচিব বলে অপপ্রচার করতে থাকে। তার বিরুদ্ধে কেন্দ্রে অভিযোগ দেয়। কিন্তু তারপরও সাদ্দাম হোসেন দমাতে পারেনি। সাদ্দাম হোসেন সেই সকল দুর্নীতিবাজদের ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে এগুতে থাকে। দলের কর্মকান্ড চালিয়ে যায়। কারন, তার মধ্যে দলের প্রেম ভালোবাসা রয়েছে। দুর্নীতিবাজরা তাকে স্বীকার করুক আর নাই করুক, কাগজে কলমে সাদ্দাম হোসেন বৈধ সদস্য সচিব। এটা প্রমানিত। যার প্রমান বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ সাদ্দাম হোসেনকে চিনে ও জানে। যার ফলে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য নৌকার মাঝি শামীম ওসমানের পক্ষে আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগের সদস্য সচিব সাদ্দাম হোসেন নিরলসভাবে কাজ করে গেছে। দিন রাত পরিশ্রম করেছে। নৌকার পক্ষে বড় বড় মিছিল করে তাক লাগিয়েছে। এখনো নারায়ণগঞ্জসগ সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন জায়গায় শোভাপাচ্ছে সাদ্দাম হোসেনের সদস্য সচিব পদ দ্বারা নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে বিভিন্ন ব্যানার-ফ্যাস্টুন। ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রতিদিনই সংবাদ প্রকাশিত হয় কিন্তু আজ পর্যন্ত সাদ্দাম হোসেনের পক্ষ ছাড়া বিরুদ্ধে মারামারি, চাদাবাজি, সন্ত্রাসীর কোন সংবাদ আজ পর্যন্ত প্রকাশিত হয়নি। এতেই বুঝা যায় সাদ্দাম হোসেন হচ্ছে স্বচ্ছ রাজনীতির ধারক ও বাহকের প্রমান। স্বচ্ছ রাজনীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত সাদ্দাম হোসেন। ইদানিং সেই দুর্নীতিবাজ, একাধিক মামলার আসামীরা সদস্য সচিব সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। আদমজী ইপিজেডের অভ্যন্তরে কিডো বিডি কোম্পানীর কর্মকর্তাদের গাড়ীতে হামলার ঘটনায় আদমজী আঞ্চলীক শ্রমিকলীগের সদস্য সচিব সাদ্দাম হেসেনকে ফাসানো অপচেষ্টা করছে। গাড়ীতে হামলার ঘটনায় অজ্ঞাত আসামীরা হামলা চালিয়েছে বলে বাদীর মুল এজহারে থাকলেও অভিযোগে বাদী সন্দেহ করেন যে হামলায় সাদ্দাম হোসেন থাকতে পারে। আর এই সন্দের ঘটনায় তদন্ত হচ্ছে। সিসি টিভি ফুটেজ সংগ্রহের কাজ চলছে। সাদ্দাম হোসেনের প্রশ্ন, এজহারে যেখানে অজ্ঞাত আসামীরা হামলা চালিয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। অভিযোগে যেখানে আমাকে হামলার সাথে থাকতে পারি বলে সন্দেহ করা হয়েছে, যেখানে আমি কিভাবে রাতারাতি বড় ধরনের বেপরোয়া লোক হয়ে গেলাম যা বিভিন্ন পত্রিকা ও অনলাইনে প্রচারিত হচ্ছে তা বোধগম্য নয়। আমি ধারনা করছি যারা আমারে রাজনৈতিক সুনামে ইশ^ান্বিত তারাই আমাকে ফাসাতে চাইছে। তারাই আমাকে মামলার আসামী করার পেছনে কাজ করেছে। তারাই আজ পত্রিকায় অনলাইনে টাকা দিয়ে তাদের পোষ্য সাংবাদিক দিয়ে মিথ্যে সংবাদ প্রকাশ করছে। ঘটনা ১৭ তারিখের হলেও আজ ৭দিন পর আমাকে নিয়ে বাড়াবাড়ি কেন। আমি অভিযোগে সন্দেহভাজনের নাম দেখে ২দিন আগে নিন্ম আদালতে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে জামিন নিয়েছি। আমি বলতে চাই, আমি কখনো কোন ধরনের সন্ত্রাস, দর্নীতি, চাদাবাজি, মারামারির রাজনীতি পছন্দ করি না। যার প্রমান সাংবাদিকভাইেয়েরা জানেন। আজ ১৫বছর পর আমার নামে মিথ্যে সংবাদের উদ্দেশ্য কী। আমি যদি দোষি হই তাহলে সিসি টিভি ফুটেজে প্রমানিত হবে। তদন্তে প্রমানিত হবে। তখন আমাকে নিয়ে সংবাদ করিয়েন। কিন্তু এখন আমার অভিযোগ প্রমান না হতেই আমার নামে সংবাদ শুরু করে দিয়েছেন, এটা কোন নিয়মে পড়ে। এটা আপনাদের কাছেই বিচার দিলাম। যারা আমাকে নিয়ে আপনাদের কাছে ষড়যন্ত্র করছে তাদের চরিত্র আগে একটু ভালো করে দেখেন। তারা কেমন। তারা কয়টি মামলার আসামী। তারা কিভাবে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছে। তাদের বাহিনী সমাজে কি করছে। এই বিচার আপনাদের বিবেকের কাছে দিলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © 2023 নিউজ বায়ান্ন ২৪

প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park